দুর্নীতির দায়ে ৪(চার) বিচারক বরখাস্ত এবং ৪(চার)শতাধিক জেলাজজ দুর্নীতিবাজ প্রসঙ্গে।

 

১।০২-০৩আগস্ট, ২০১৬ইং আমাদের সাইটটি টোট্যালী ড্যামেজ করা ছিল আমাদের প্রথম সফলতা। কেননা আমরা দুর্নীতির দূর্গে আঘাত হানতে পেরেছিলাম, তাই আমাদের ওয়েবসাইট হ্যাক ও ড্যামেজ করা হয়েছিল।

২।২-৩মাস পূর্বেই আমরা “৪(চার)শতাধিক জেলাজজ দুর্নীতিবাজ” লিখাটি পোস্ট করি, যা সর্বশেষ ০৬ আগস্ট, ২০১৬ইং আবার প্রকাশ করা হয়। দ্রস্টব্যঃ- http://corruptionwatchbd.com/9-2/, (দুই)টি দুর্নীতির মামলা নিষ্পত্তি (চার) জেলাজজের দুর্নীতি। http://corruptionwatchbd.com/10-2/ ১১আগস্ট,২০১৬ইং চার বিচারকের চাকুরীচ্যুতি আমাদের ২য় সফলতা এবং ইহাই অনেক বড় সফলতা। কেননা ২০০৯সাল থেকে গবেষনা করে আমরা দেখেছি যে, নিম্ন আদালতের মামলাজটের জন্য প্রধানতঃ(একমাত্র নহে) বিচারকদের(সবাই নহে) দুর্নীতি দায়ী। ১১আগস্ট,২০১৬ইং চার বিচারকের চাকুরীচ্যুতির মাধ্যমে প্রমানিত হল যে, সততা ও ভদ্রতার মুখোশধারী বিচারকদের একটি বিরাট অংশ দুর্নীতিবাজ। অর্থাৎ আমাদের গবেষনাই সঠিক।

৩।নিম্ন আদালতের যেসব বিচারক সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত (মাঝখানে আধা ঘন্টার বিরতি) এজলাস করেনা, মনে রাখবেন তারা সবাই দুর্নীতিবাজ। এসকল বিচারকের ব্যাপারে সুপ্রীমকোর্টে, আইন মন্ত্রনালয়ে রিপোর্ট করুন। দ্রস্টব্যঃ- http://archive.prothom-alo.com/detail/date/2010-10-04/news/98691

সময়সূচি মেনে চলতে বিচারকদের প্রতি প্রধান বিচারপতির নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক | তারিখ: ০৪১০২০১০

 

জেলা ও দায়রা জজসহ সারা দেশের বিচারকদের অফিসের আসা-যাওয়ার ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়সূচি মেনে চলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ………………………
সংশ্লিষ্টরা জানান, বর্তমান আদালতের নির্ধারিত সময়সূচি সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত। তবে বিচারকাজ সাড়ে নয়টায় শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত চলে। তবে দুপুরে আধাঘণ্টা মধ্যাহ্নবিরতি আছে। ……….

Related posts