রাজউক ও ছিটমহল এবং ….।

আ..র ভাই  বুয়েটের মেধাবী ছাত্র, প্রথম শ্রেনীর সরকারী কর্মকর্তা হিসাবে অবসরপ্রাপ্ত। দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন প্রতিষ্ঠানের সচিব মর্যাদার মহাপরিচালক ছিলেন। তিনি (আ..র ভাই) দৈনিক কয়েকহাজার টাকার শুধু  সিগারেট ও মদ পান করতেন। ঢাকা ক্লাব, চট্টগ্রাম ক্লাবসহ শীর্ষস্থানীয় হোটেল-ক্লাবের সদস্য। স্বাভাবিক অবস্থায় তিনি অত্যন্ত জ্ঞান ও বুদ্ধিদীপ্ত কাজ করতেন, কথা বলতেন। যখন মাতাল হয়ে যেতেন, তখন তার সকল জ্ঞান-বুদ্ধি, ভদ্রতা-নম্রতা লোপ পেত। তাস খেলার সময় মনে হত তাহার মত ভাল খেলোয়াড় আর নেই। মাতাল অবস্থায় মনে হত তাহার মত খারাপ খেলোয়াড় আর নেই।

কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন পড়ি, তখন প্রথম “ছিটমহল” সম্পর্কে জানতে পারি। তখন থেকেই এটা(“ছিটমহল”) সৃষ্টির কোন যুক্তিই খুঁজে পাইনি। ভারত ভাগে কলকাতা, আসাম, পাঞ্জাব, করাচি, ইত্যাদি কোনটা কার ভাগে পড়বে তার ন্যুনতম কিছু যুক্তি ছিল, যার মধ্যে ছিল উচ্চ পর্য্যায়ের নেতাদের তদবীর ও কারও কারও অদূরদর্শিতা, স্বার্থপরতা, ইত্যাদি।

ফ..দ ভাইও বুয়েটের মেধাবী ছাত্র, প্রথম শ্রেনীর সরকারী কর্মকর্তা হিসাবে অবসরপ্রাপ্ত এবং আ..র ভাইয়ের ক্লাসমেট ও ঘনিষ্ঠ বনধু। সম্প্রতি ভারত-বাংলাদেশ  ছিটমহল বিনিময়ের সময় ফ..দ ভাইকে জিজ্ঞেস করলাম ছিটমহল কেন সৃষ্টি করা হয়েছিল?  তিনি বিজ্ঞের মত তাৎক্ষনিক জবাব দিলেন, ”মাতাল হয়ে আ..র যা করে, ছিটমহল সৃষ্টিতেও তাই করা হয়েছে।”

রাজউকের কার্য্যকলাপ নিয়ে সমালোচনা, তীব্র অসন্তোষকারীদের মধ্যে অত্যন্ত ভদ্র, মৃদুভাষী শ্রদ্ধেয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধূরীসহ শতশত অধ্যাপক, প্রকৌশলী, স্থপতি, নগর পরিকল্পনাবিদ, পরিবেশবিদ, এমনকি টিআইবিও আছেন। এদের(রাজউক ও অনুরূপকাজে নিয়োজিত অন্য প্রতিষ্ঠান এবং এদের সাথে সংশ্লিষ্ট বা নিয়ন্ত্রনকারী কর্তৃপক্ষসহ) কার্য্যকলাপকে আমার কাছে “ছিটমহল” সৃষ্টিকারীদের এবং আ..র ভাইদের মত মনে হয়।(রাজউকের সৎ, দক্ষ ও ন্যায়পরায়ণ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন পূর্বক)।

Related posts